জন্ম ও জন্মকালীন সময়ে রূহানীভাবে সকল আম্বিয়া ও আউলিয়াকেরামের আগমন

জন্ম ও জন্মকালীন সময়ে রূহানীভাবে সকল আম্বিয়া ও আউলিয়াকেরামের আগমনঃ
ভাষান্তর: | বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी العربية العربية

জন্ম ও জন্মকালীন সময়ে রূহানীভাবে সকল আম্বিয়া ও আউলিয়াকেরামের আগমনঃ

হযরত মুজাদ্দেদ আলফেছানী (রাঃ) ছাহেব হিজরী ৯৭১ সালের ১৪-ই শাওয়াল ইংরেজী ১৫৬১ খৃষ্টাব্দ মোতাবেক শুক্রবারদিবাগত রাত্রি এই নশ্বর নরাধামে আগমন করেন। কিতাবে দেখা যায়তাহার কুনিয়াত ছিলো আবুল বারাকাত এবং লকব ছিলো বদরদ্দিন।

হযরত মুজাদ্দেদ আলফেছানী (রাঃ) ছাহেবের জননী বলেনআমার প্রসব বেদনা শুরূ হইলে এক পর্যায়ে আমি জ্ঞান হারাইয়া ফেলি। সেই অবস্থায় দেখিতে পাই যেউম্মতে মুহাম্মদীর সমস্ত আউলিয়া কেরাম রূহানী ভাবে আমার গৃহে তশরিফ আনিয়াছেন।

অতঃপর আমার একটি পুত্র সন্তান ভুমিষ্ট হয়। এমন সময় আমি একটি গায়েবী আওয়াজ শুনিতে পাই। কে যেন আমাকে বলিলেনআল্লাহতায়ালা শায়খ আহমদকে সর্ব বিষয়ে কামালিয়াত বা পরিপূর্ণতা দান করিয়াছেন।

মুজাদ্দেদ আলফেছানী (রাঃ) ছাহেবের পিতা হযরত আব্দুল আহাদ (রঃ) ছাহেব বলেন-শায়খ আহমদের জন্মোপলক্ষ্যে আমি দেখিতে পাই যেহযরত রাসূলে পাক (সাঃ) সকল আম্বিয়ায়ে কেরাম ও অসংখ্য ফেরেশতাসহ আমার গৃহে পদার্পণ করিয়াছেন এবং নবজাত শিশুকে মোবারকবাদ জানাইতেছেন। রাসূলে পাক (সাঃ) নিজেই নব জাতকের কর্ণে আযান ও একামত দিতেছেন।

খোদাপ্রাপ্তি জ্ঞানের আলোকে শাহ্সূফী হযরত ফরিদপুরী (কুঃছেঃআঃ) ছাহেবের নসিহত-৮ এর “মুজাদ্দেদ আলফেছানী (রাঃ) ও খাজা বাকীবিল্লাহ (রঃ)” কিতাব পৃষ্ঠা: ১৬ ও ১৭ হতে তুলে ধরা হয়েছে।

→ নসিহত: মুজাদ্দেদ আলফেছানী (রাঃ) ও খাজা বাকীবিল্লাহ (রঃ) এর সব গুলো অধ্যায়

আরো পড়ুন:

→ পীরের প্রতি মুরিদের আদব সর্ম্পকে মোজাদ্দেদ আলফেছানী রা: এর উপদেশ

→ সংক্ষিপ্ত ওজিফা সবগুলো পর্ব

→ আদাবুল মুরিদের সবগুলা নসিহত একসাথে

→ বিশ্ব জাকের মঞ্জিলের পরিচালনা-পদ্ধতির সব গুলো অধ্যায়

error: অনুমতিহীন কপিকরা দণ্ডনীয় অপরাধ!