হোমপেজ বাণী ও উপদেশ হযরত গাউছে সুলতান নূর নগরী (কঃ)’র পবিত্র কালাম মোবারক।

হযরত গাউছে সুলতান নূর নগরী (কঃ)’র পবিত্র কালাম মোবারক।

হযরত গাউছে সুলতান নূরনগরী (কঃ)'র পবিত্র কালাম মোবারক।

হযরত গাউছে সুলতান নূর নগরী (কঃ)’র ১০টি পবিত্র কালাম

(১) তিন শ্রেণীর লোক হতে পানাহ চাও,

ক) আলেমে বেআমল (আমল বিহীন আলেম)।
খ) সূফিয়ে জাহেল (অজ্ঞ সূফি)।
গ) ফকিরে কাজেব (মিথ্যাবাদী ফকির)।

(২) মানুষের চারটি দোষ,

ক) জাহেলী তথা অজ্ঞতা।
খ) কাহেলী তথা অলসতা।
গ) নাকেসী তথা জ্ঞানের অসম্পূর্ণতা।
ঘ) বেকসী তথা অসহায় বোধ।

(৩) পীর মুর্শিদের অনুমতি ব্যাতিরেকে সংসার বিরাগী হওয়ার পরিণাম ফল বেঈমানী,

(৪) খওফ তথা ভয়, রজা তথা আশা, এই দুয়ের মধ্যেই ঈমান নিহিত।

(৫) কোন অলিয়ে কামেলের দরবারে বন্দুক বাজী করে প্রানী বধ করা বেয়াদবি বা গুনাহের কাজ।

(৬) ধন-সম্পদ, সন্তান-সন্তুতি নহে খোদাকে ভুলিয়া যাওয়াই দুনিয়া।

(৭) রোজায়ে হাকিকি বা সঠিক রোজা হচ্ছে দুনিয়াকে তরক করা বা দুনিয়া হতে হাত উঠানো।

(৮) জজবা হালে নেচে উঠা, গজল গাওয়া, বাজনা বাজানো, এসকল হল মাইজভান্ডারি ত্বরীকায় ফয়েজ লাভের শ্রেষ্ঠ পন্থা। এসব কাজ কারবার হতে দুনিয়ার লোকদের ভাববার বা শিখবার অনেক কিছু আছে।

(৯) উঁচু-নিচু ভেদাভেদ ভুলে উর্ধ্বে উঠতে পারলে দেখবে এবং বুঝতে পারবে সব কিছু পরিষ্কার এবং লাভ করবে লাভ করবে শান্তি।

(১০) হযরত প্রায়ই কালাম করতেন মরার আগে মরে যাও।

(গ্রন্থসূত্রঃ হযরত নূরনগরী (কঃ)’র জীবন চরিত্র)।