পীরের প্রয়োজনীয়তা নিয়ে জালালউদ্দিন রুমির বাণী

ভাষান্তর: | বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी العربية العربية

পীরের প্রয়োজনীয়তা নিয়ে জালালউদ্দিন রুমির বাণী

১.
যে মুর্শিদকে খোদারূপে দেখে নাই সে মুরিদ নয়, সে মুরিদ নয়, সে মুরিদ নয়।
-জালালউদ্দীন রুমী (রহঃ)।

২.
আমার মুর্শিদ কামেল শামছে তাবরিজীর গোলামী না করা পর্যন্ত আমি মাওলানা রুমি কামেল হতে পারি নি।
-জালালউদ্দীন রুমী (রহঃ)।

৩.
তোমার মুর্শীদকে তোমার কালবে বসাও, দেখবে তুমি, ঐশ্বরিক আলোতে আলোকিত হয়েছ।
-জালালউদ্দীন রুমী (রহঃ)।

৪.
পীরের হাত অদৃশ্য জগৎ হতে দূরে নয়। তার হাত আল্লাহ্‌র হাত ব্যতীত আর কিছুই না।
-জালালউদ্দীন রুমী (রহঃ)।

৫.
তোমার পীর যখন তোমাকে মুরিদ বলে স্বীকৃতি দিবেন, তখনি রাসূল তোমাকে উম্মত বলে এবং আল্লাহতাআলা তোমাকে বান্দা স্বীকৃতি দিবেন।
-জালালউদ্দীন রুমী (রহঃ)।

৬.
তুমি যদি আল্লাহ পাকের সান্নিধ্য লাভের ইচ্ছা পোষণ কর, তবে আউলিয়া কেরামের দরবারে বসে যাও।
-জালালউদ্দীন রুমী (রহঃ)।

৭.
এক মুহুর্ত আউলিয়ায়ে কেরামের সহচার্য লাভ করা, শত বছরের ত্রুটিহীন এবাদত অপেক্ষা উত্তম।
-জালালউদ্দীন রুমী (রহঃ)।

৮.
যদি কামেল পীরের সোহবত ক্ষণিকের জন্যেও পাও, তাহা গ্রহণ করো। জেনে রেখো, তাহা হাজার বছরের ফকিরি হতেও উত্তম।
-জালালউদ্দীন রুমী (রহঃ)।

৯.
তুমি যদি তোমার পীরের পদধূলি দ্বারা স্বয়ং চক্ষুকে জ্যোতিময় কর, তবে তুমি আদি ও অন্ত সব কিছু দেখতে সক্ষম হবে।
-জালালউদ্দীন রুমী (রহঃ)।

১০.
আউলিয়াগণ (হৃদয়) মসজিদের ভিতরেই (অবস্থান করে) থাকেন উহাই আল্লাহ লাভের জন্য, সকলের (কাবা) সেজদার স্থান
-জালালউদ্দীন রুমী (রহঃ)।

১১.
হে প্রিয় বৎস! তোমার উপর যদি মুর্শিদের ছায়া না থাকে, তবে শয়তানের ওয়াসওয়াসাহ তোমাকে সর্বদা অস্থির করে রাখবে।
-জালালউদ্দীন রুমী (রহঃ)।

১২.
পীরের নিকট হইতে মুখ ফিরিওনা, সেজদা কর নৈকট্য অর্জন কর।
-জালালউদ্দীন রুমী (রহঃ)।

১৩.
তুমি যদি আল্লাহ পাকের সান্নিধ্য বা সামনে বসতে চাও, তবে কামেল পীরের দরবারে বসে যাও।
-জালালউদ্দীন রুমী (রহঃ)।

১৪.
শত শত কিতাব আগুনে নিক্ষেপ কর। তোমার সিনাকে পীরের ধ্যান দ্বারা সত্য নূর দিয়ে ফুল বাগানে পরিণত কর।
-জালালউদ্দীন রুমী (রহঃ)।

১৫.
তুমি যদি মারেফাতের নূর চাও, তবে মুশিদে কামেলের সাহর্চাযে থাকিয়া নূরের প্রতিভা ও যোগ্যতা অর্জন কর। আর যদি আল্লাহর রহমত থেকে দুরে থাকিতে চাও, তবে অহংকার ও খোদপছন্দী কর এবং অলীর দরবার থেকে দুর হয়ে যাও।
-জালালউদ্দীন রুমী (রহঃ)।

১৬.
যেহেতু মানুষের আকৃতিতে বহু শয়তান রয়েছে, তাই অনুসন্ধান না করে যে কোন হাতে হাত দেওয়া বা বাইয়াত হওয়া উচিৎ নয়।
-জালালউদ্দীন রুমী (রহঃ)।

১৭.
প্রকৃত পীর মুর্শিদ তথা তাঁর রুহানী ফয়েয বরকত তাঁর মুরিদের ভিতর হতে দুনিয়ার মোহকে চোষে নেয়, ঐ ফয়েজের বদৌলতেই ইলহাম, ওহী এবং তার গোপন রহস্যের স্বাদ অনুভব করে।
-জালালউদ্দীন রুমী (রহঃ)।

১৮.
পীরের জাত ও আল্লাহর জাত এক জাত, এই দুই নূরকে যে এক রুপে দেখতে না পারবে সে মুরিদ নয়, সে মুরিদ নয়, সে মুরিদ নয়।
-জালালউদ্দীন রুমী (রহঃ)।

১৯.
তুমি যদি কঠিন শিলা বা র্মাবেল পাথর ও হও, তুমি যখন কামেল পীরের সান্নিধ্যে পৌঁছবে তখন তুমি মুক্তায় পরিণত হবে।
-জালালউদ্দীন রুমী (রহঃ)।

২০.
কামেল ব্যক্তির দেহ জমীনে থাকে, আর ‘রুহু, আরশ-কুরসীর উর্ধ্বে লা-মোকামে’ থাকে, যাহা আল্লাহ্‌’র পথের পথিকদের ধারণারও বহু উর্ধ্বে।
-জালালউদ্দীন রুমী (রহঃ)।

সূত্র: মসনবী
রচয়িতা: মাওলানা জালালউদ্দীন রুমি (রহঃ)

error: অনুমতিহীন কপিকরা দণ্ডনীয় অপরাধ!