হোম আহলে বায়াত (পাকপাঞ্জাতন) ইমাম জাফর সা‌দেক (আ:)- দ্বী‌নিশিক্ষা ব্যবস্থার প্রবর্ত‌ক।

ইমাম জাফর সা‌দেক (আ:)- দ্বী‌নিশিক্ষা ব্যবস্থার প্রবর্ত‌ক।

ছবি: ১৯২৫ - জান্নাত আল-বাকী'তে ইমাম জাফর সাদিক (আ.)-এর মাজার শরীফ

ইমাম জাফর সা‌দেক (আ:)- দ্বী‌নিশিক্ষা ব্যবস্থার প্রবর্ত‌ক।

১৭ র‌বিউল আউয়াল নবী বংশের ষষ্ঠ ইমাম হযরত জাফর সা‌দেক আলাই‌হিস সালামের প‌বিত্র বেলাদাত দিবস-জন্ম‌দিন। বলা যায় আজ‌কের দ্বী‌নি শিক্ষা ব্যবস্থার প্রবর্ত‌ক তি‌নিই। কারবালার ঘটনার প‌রে ইমাম জয়নুল অ‌া‌বেদীন আস-স‌াজ্জাদ আলাই‌হিস সালা‌মের সময় প‌রি‌বেশ-প‌রি‌স্থি‌তি খুবই ক‌ঠিন ছিল কিন্তু ইমাম বা‌কের আলাই‌হিস সালামের সময়ে উমাইয়ারা দূর্বল হ‌য়ে যাওয়ায় প‌রি‌স্থি‌তি কিছুটা শিথিল হ‌য়ে যায় এবং ইমাম জাফর সা‌দেক আলাই‌হিস সালা‌ম মস‌জি‌দে নববীতেই পাঠদান শুরু ক‌রেন।

জান্নাতুল বাকী – বাদশা ইবনে সৌদ কর্তৃক ১৯২৫ সালের ধ্বংসের আগের চিত্র।

জাফরী ‌শিয়া‌দের ধর্মীয় শিক্ষাধারা হাউজাতুল ইল‌মিয়া‌র পু‌রোটাই ইমাম জাফর সা‌দেক আ. থে‌কে এম‌নকি সু‌ন্নি‌দের সকল মাদরাস‌া যে শিক্ষা প্র‌তিষ্ঠানের শাখা-প্রশাখা সেই প্রচীন শিক্ষা প্র‌তিষ্ঠান ‌বিশ্ব‌বিখ্যাত আজ-আজহার বিশ্ব‌বিদ্যালয়ও ইমাম জাফর সা‌দেক আ.-এর সন্তান ইসমাই‌লের আনুসারী মিশ‌রে ফা‌তেমী খেলাফ‌তের চতুর্থ খ‌লিফা আল-মু‌য়িজ লি-দ্বীনিল্লাহর নি‌র্দেশে স্থাপন করা হয়ে‌ছিল।

১৪৮ হিজরীতে শহীদ হওয়ার আগ পর্যন্ত ইমাম জাফর সা‌দেক আলাই‌হিস সালা‌মের কা‌ছে ৪ সহস্রা‌ধিক শিয়া-সু‌ন্নি ছাত্র ইসলা‌মী জ্ঞা‌নের বি‌ভিন্ন শাখায় শিক্ষা লাভ ক‌রেন। শিয়া‌দের ম‌ধ্যে হযরত জুরারা বিন আ’ঈন, বুরাঈদ বিন মুয়া‌বিয়া, জা‌মিল বিন দাররাজ, আব্দুল্লাহ বিন মুসকান, আব্দুল্লাহ বিন বুকাইর, জা‌বির ইব‌নে হাইয়ান আর আহ‌লে সুন্নাহর ইমাম হয‌রত আবু হা‌নিফা, ইমাম মা‌লেক বিন আনাস, সু‌ফিয়ান সাওরী, বা‌য়ে‌জিদ বোস্তামী রেজওয়ানুল্লা‌হি তায়ালা আলাই‌হিম আজমাঈন অন্যতম।

আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাই‌হি ওয়া আলে‌হীর আহ‌লে বাই‌তের ম‌ধ্যে হযরত ইমাম জাফর সা‌দেক আলাই‌হিস সালা‌ম থে‌কে সব‌চে‌য়ে বেশী হাদীস বর্ণনা হ‌য়ে‌ছে। ‌ফেকাহর বি‌ভিন্ন মতপার্থক্যর ক্ষে‌ত্রে ইমাম জাফর সা‌দেক আলাই‌হিস সালা‌মের সমাধানগু‌লোর অনুসরণকারীরা জাফরী মাজহাবের অনুসারী না‌মে প‌রি‌চিতি পে‌য়ে‌ছেন। শুধু জাফরি মাজহা‌বের অনুসারীরা নয় বরং মস‌জি‌দে নববী‌তে তাঁর হাত দি‌য়ে জ্ঞান চর্চার যে বিপ্লব শুরু হ‌য়ে‌ছিল তা দ্বারা সমগ্র মুস‌লিম বিশ্ব উপকৃত হ‌য়ে‌ছে।

ধ্বংসের আগে জান্নাতুল বাকী এবং বর্তমান:

কিন্তু দুঃখজনক হ‌লেও সত্য আজ‌কে বাংলা‌দে‌শের সাধারণ মানুষ‌তো দূ‌রের কথা অ‌ধিকাংশ আলেমও ইমাম জাফর সা‌দেক আ. সম্প‌র্কে তেমন ‌কিছুই জা‌নেন না। যখন বলা হয় হযরত ইমাম আবু হা‌নিফা রহ.-এর ওস্তাদ, তখন কেউ কেউ চিন‌তে পা‌রে। ইমাম আবু হা‌নিফা রহ.-এর তাঁর ওস্তাদ ইমাম জাফর সা‌দেক আ. সম্প‌র্কে একটা কওল র‌য়ে‌ছে, যেটার মর্মার্থ এরূপ “যদি দু’বছর ইমাম জাফর সা‌দেক আ.-এর কা‌ছে আমি আবু হা‌নিফা শিক্ষা লাভ না করতাম ত‌বে ধ্বংস হ‌য়ে যেতাম।”

আহ‌লে সুন্নাহর ফেকা‌হের চার ইমাম-ই ইমাম জাফর সা‌দেক আলাই‌হিস সালামের ছাত্র বা ছাত্রের ছাত্র। আর কা‌দেরীয়া, নক‌শেবন্দীয়া মুজা‌দ্দেদীয়াসহ বহু ত‌রিকার শাজারায় তাঁর নাম র‌য়ে‌ছে। চিশতীয়া ত‌রিকায় ইমাম সা‌দেক আলাই‌হিস সালামের নাম না থাক‌লেও খাজা মুঈনুদ্দীন চিশতী রহ.-এর বং‌শের শাজায়ায় তাঁর নাম র‌য়ে‌ছে।

– আবু সালেহ

পূর্ববর্তী পোস্টকুতুবউদ্দিন আহমেদ আল হোসাইনী চিশতীর বাণী (পর্ব-১)
পরবর্তী পোস্টআহলে বাইয়াতের নামের শেষে আলাইহিস সালাম ব্যবহার করা যাবে কিনা।
«انا عبد من عبيد محمد صلي الله عليه و آله و سلم»

2 মন্তব্য

এই পোস্টে একটি মন্তব্য করুন:

আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে আপনার নাম লিখুন