হোম ওলীদের কারামত খাজা গরীবে নেওয়াজ ও তার এক ভক্তের অলৌকিক কাহিনী।

খাজা গরীবে নেওয়াজ ও তার এক ভক্তের অলৌকিক কাহিনী।

খাজা গরীবে নেওয়াজ ও তার এক ভক্তের অলৌকিক কাহিনী।

খাজা বাবা গরীবে নেওয়াজ আজমেরি (রহঃ) এর ওফাতের পরের একটি ঘটানা, তার এক ভক্ত কিছু টাকার জন্য কন্যা বিয়ে দিতে পারছিলনা। কোন উপায় না দেখে সে আজমিরে খাজার দরবারে চলে যায়। গরীবে নেওয়াজের প্রতি তার বিশ্বাস ছিল তাই সে মাজারে গিয়ে তার সব দুখের কথা বলল:

আপনি অবশ্যই জিন্দা রয়েছেন, বাবা যে করেই হোক আমাকে কিছু টাকার ব্যাবস্থা করে দিন, না হলে আমার মেয়ের বিয়ে ভেংঙে যাবে। এভাবে অনেক আকুতি মিনতি করতে থাকেন। সকাল গড়িয়ে বিকাল হল, বিকাল গড়িয়ে সন্ধ্যা, কিন্তু কোন প্রকার সাহায্য পাওয়া গেল না।

তারপর ঐ ভক্ত রাগান্বিত হয়ে হাতে একটি লাঠি নিয়ে মাজারের ওপর তিনটা আঘাত করে বলল: গরীবে নেওয়াজ মিথ্যে, সব ভন্ডামী, আর কখনো এখানে আসবনা। একথা বলে তিনি যখন মাজার থেকে বের হয়ে চলে যাচ্ছিলেন, একটু দূরে যেতেই দেখলেন এক বৃদ্ধ চাদর গায়ে দাড়িয়ে আছেন। বৃদ্ধ লোকটি নিজেই ঐ ভক্তের কাছে এসে বললেন, তোমার টাকা দরকার? এই নাও, তুমি যতটা চেয়েছিলে এখানে তার থেকে বেশি আছে।

তিনি টাকাগুলো হাতে নিয়ে বললেন, আপনি কে? বৃদ্ধ বললেন, আমি আল্লাহর এক পাগল, লোকে আমাকে না বুঝেই মারে। এইমাত্র এক লোক আমাকে লাঠি দিয়ে তিনটা আঘাত করলো। এই দেখো তিনটি আঘাতের দাগ।

তারপর ঐ ভক্ত অবাক হয়ে দেখলেন এবং ভাবতে লাগলেন তিনি কি তাহলে খাজা বাবা? তারপর হঠাৎ দেখলেন তিনি উধাও হয়ে গেলো। তিনি তখন আবারো মাজারে ঢুকে অঝোর নয়নে কাঁদতে লাগলেন। শেষে মাজার থেকে শব্দ এলো “তোমাকে ক্ষমা করা হয়েছে।”

– আত্মশুদ্ধিতে মারেফত

পূর্ববর্তী পোস্টসাহাবাদের সম্পর্কে আওলিয়ায়ে কেরামগনের মতামতঃ
পরবর্তী পোস্টমোহাম্মদ (সা:) খোদা নয় আবার খোদা হতে পৃথকও নয়।
আমি বিজাত নই, তোমারই জাত! আজ গুন হারিয়ে গুরুত্বহীন-তুমি স্বাধীন আমি পরাধীন-অবশ্যই একসাথে ছিলাম একদিন।