হোমপেজ সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি ও নারী সব দোষই কি মেয়েদের!

সব দোষই কি মেয়েদের!

সব দোষই কি মেয়েদের!

সাম্প্রতিক পথে ঘাটে মেয়েদের সাথে যে ববর্তার ঘটনা গুলো ঘটছে… এর জন্য কি মেয়েরাই দায়ী!!! মেয়েদের পোষাকই দায়ী! শাড়ি পড়াই দায়ী! পর্দা না করাই দায়ী! অনেক ভদ্র সুপুরুষেরই বলছেন যে, এমন মেয়েদের এমনই হওয়া উচিত।

আপনাদের মত পুরুষদের বলছি, শুনুন ছেলেদের প্রতিও ত মেয়েদের আকর্ষন আছে, বিপরীত লিঙ্গের প্রতি এই আকর্ষন শক্তি দিয়েই স্রষ্টা প্রাণীকুল সৃষ্টি করেছেন। কাল থেকে যখন রাস্তায় বের হবেন, তখন নিজের যৌনাঙ্গ নামক মেশিন টা বের করে রাস্তায় বের হয়েন। তাতে দেইখেন কোনো মেয়ে বা মেয়ের দল আপনার দিকে হায়ানাদের মত ঝাপিয়ে পড়ে কিনা। দেইখেন কোনো মহিলা হোস্টেল বা কলেজের সামনে দিয়ে গেলে আপনার উপর আক্রমন করে কিনা, আপনার মেশিন টা নিয়ে টানা টানি করে কিনা।

সত্যিই মেয়েরা এরকম কখনোই করবে না আপনাদের সাথে। কারন তারা মায়ের জাত, বোনের জাত, স্ত্রীর জাত। তারা বুঝে যে তাদের ভাই আছে, ছেলে আছে, স্বামী আছে, বাবা আছে। পুরুষদের তারা সম্মান দিতে জানে। যৌনক্ষুধা তাদের নেই, এমন নয়। কিন্তু তারা আপনাদের মত হায়নার স্বভাবে স্বভাবিত নয়।

তাহলে পোশাককেই কেন এইসব বর্বরতার কারন হিসেবে চিহ্নিত করতেছেন! আশে পাশে ত আপনাদের মত হাজার হাজার সুপুরুষরা দাড়িয়ে দারিয়ে তামাশা দেখে। বাধা দেয় না কেন! আপনারা মেয়েদের সম্মান দিতে জানেন, এইটাই কি তার প্রমাণ!

যা ই হোক, যেই পোশাকে যেই নারী অপমানিত হচ্ছে একদল কুলাঙ্গার পুরুষ কর্তৃক, সেই পোশাকেই ত তিনি অন্য হাজার টা পুরুষদের পাশ দিয়ে যাতায়াত করেছে, কিন্তু সেসব পুরুষরাতো তাকে লাঞ্চিত করে না। তাহলে তারা কি পুরুষ নয়! নাকি পুরুষদের মাঝে ভদ্রতা থাকতে নেই! নাকি ভদ্ররা পুরুষ না! শুধু আপনাদের মত যৌন পিপাসু পুরুষ লিঙ্গের প্রানী গুলোই পুরুষ মানুষ!

ভেবে দেখবেন আপনি পুরুষ নাকি শুধুই একটা কামুক প্রানী। ভেবে দেখবেন আপনি কারো ভাই, ছেলে, বাবা, স্বামী নাকি শুধুই নারী ভক্ষণকারী। নিজেকে ভাল করুন, নিজের দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন করুন। বোকা ত সেই ব্যক্তি, যে নিজেকে না পাল্টিয়ে জগতকে পাল্টাতে চায়। আপনিই এখন নির্ধারণ করুন, আপনি কোন দলে যোগ দিবেন।

– DM Rahat